বিশ্বের সর্ববৃহৎ বার্ন ইনস্টিটিউটের কার্যক্রম শুরু

0
233

দেশের বুকে বিশ্বের সর্ববৃহৎ “শেখ হাসিনা ন্যাশনাল বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট” উদ্বোধন করা হযেছে। যার ফলে দেশের বার্ন চিকিৎসার নবদিগন্ত উম্মোচিত হবে বলে আশা করা যায়। আজ ২৪ অক্টোবর রোজ বুধবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে রাজধানীর চানখাঁরপুলে ১৮ তলাবিশিষ্ট ৫০০ শয্যার এ ইনষ্টিটিউটের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বার্ন ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়কারী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, এই ইনস্টিটিউট থেকে আগুনে পোড়াসহ বিভিন্ন দগ্ধদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।অধিক পোড়া রোগীসহ এখানকার প্লাস্টিক সার্জনরা দেশের চিকিৎসা চাহিদা পূরণে সক্ষম ভূমিকা পালন করতে পারবেন।

বিশ্বের সর্ববৃহৎ বার্ন ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন

বিশ্বের সর্ববৃহৎ বার্ন ইনস্টিটিউটের কার্যক্রম শুরু

বিশ্বের সর্ববৃহৎ ১৮ তলা বিশিষ্ট এই বার্ন ইনস্টিটিউটিকে পৃথক তিনটি ব্লকে ভাগ করা হয়েছে। ভবনটিতে রয়েছে ৫০০টি শয্যা, ৫০টি ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট, ১২টি অপারেশন ও অত্যাধুনিক পোষ্টঅপারেটি ওয়ার্ড।ভবনটির মাটির নিচে তিনতলা রেজমেন্ট।সেখানে গাড়ি পার্কিং ও রেডিওলজিসহ আরোও করয়েকটি পরীক্ষা-নিরীক্ষার বিভাগ।ইনস্টিউটিটের একদিকে থাকবে বার্ন ইউনিট ও অপরদিকে প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিট আর অারকেটি ব্লকে চালানো হবে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম। মোট কথা এই বার্ন ইনষ্টিটিউট দেশের নবদিগন্ত উম্মোচিত করবে। শুধু রোগীদের চিকিৎসা নয় বরং চিকিৎসক ও নার্সদের পেশাগত জ্ঞানের দক্ষতা ও গবেষণা বৃদ্ধিতে সহায়ক অত্যাধুনিক ও আন্তজার্তিক মানের একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হবে।বাংলাদেশে এই প্রথবারের মতো কোন সরকারি হাসপাতালে হেলিপ্যাড সুবিধা রাখা হয়েছে।সরকারি খরচে বিনামূল্যে সুচিকিৎসা পাওয়ার জন্য বিশ্বের আর কোথাও এমন বার্ন ইনস্টিউট নেই।

স্বাধীনতার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নিদের্শে রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে খুবই সীমিত পরিসরে ৫ শয্যার বার্ন ওয়ার্ড চালু হয়েছিল। তবে আশির দশকের প্রথম ভাগেও দগ্ধ রোগীদের জন্য ঢাকা মেডিকেলে কোনো বার্ন ইউনিট ছিল না। সেই সময় বার্নের রোগীরা সুচিকিৎসার অভাবে মারা যেত।এক পরিসংখ্যানে দেখা যায় আমাদের দেশেই রয়েছে সবচেয়ে বেশি বার্ন রোগীদের সংখ্যা।তাই এমন একটি অত্যাধুনিক ও যুগউপযোগী বার্ন ইউস্টিটিউট দেশের জন্য ছিল সময়ের দাবী। তারই ধারাবাহিকতায় রুপ হিসেবে ২০১৫ সালের ২৪ নভেম্বর জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি একনেকের এক সভায় এ ইনস্টিউট নির্মাণের অনুমোদন করা হয়। যার পরে ২০১৬ সালের ৬ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজধানীর চানখাঁরপুলে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। একই বছরের ২৭ এপ্রিল বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোর নির্মাণকাজ শুর করে। সেনাবাহিনীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে দুই একর জমির ওপর ৯১২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয় বিশ্বের সর্ববৃহৎ বার্ন ইনস্টিটিউট।

আমাদের সাথে যুক্ত হতে চাইলৈ : ফেসবুক পেইজ | | ফেসবুক গ্রুপ
উপরোক্ত তথ্য সম্পর্কিত কোন মতামত জানাতে চাইলে কমেন্ট করুন এবং শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন