সরকারি ও বেসরকারি ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে নার্সিং ভর্তি আবেদন

0
1854

সরকারি ও বেসরকারি নার্সিং কলেজ/ইনস্টিটিউটে ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ভর্তির আবেদন আহবান করা হচ্ছে। নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তর, ঢাকা ও এর আওতাধীন ৩৮টি সরকারি মিডওয়াইফারি ইনস্টিউট, ৪৩টি নার্সিং ইনস্টিটিউট ও ১১টি নার্সিং কলেজ এবং বাঙলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউন্সিল কর্তৃক অনুমোদিত ও নিবন্ধনকৃত বেসরকারি নার্সিং/মিডওয়াইফারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি,ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন নার্সিং (বিএসসি ইন নার্সিং) ও ডিপ্লোমা ইন নাসিং সায়েন্স এন্ড মিডওয়াইফারি কোর্সের ১ম বর্ষে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য অনলাইনে আবেদন আহবান করা যাচ্ছে।

২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ সরকারী নার্সিং ভর্তি বিজ্ঞপ্তি

নার্সিং ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ও সময়সূচী

অনলাইনে আবেদন শুরু তারিখ২৭/১০/২০১৮ (সকাল ১০টা হতে শুরু হবে)
অনলাইনে আবেদনের শেষ তারিখ২৭/১১/২০১৮ (রাত ১১:৫৯ মিনিট পর্যন্ত)
অনলাইনে টাকা জমা দেওয়ার তারিখ১৮/১১/২০১৮ তারিখ হতে ২১/১১/২০১৮ রাত ১১:৫৯ মিনিট পর্যন্ত
অনলাইনে প্রবেশপত্র ডাউনলোডের তারিখ৩০/১১/২০১৮ হতে ০৪/১২/২০১৮ (রাত ১১:৫৯ মিনিট পর্যন্ত)
ভর্তি পরীক্ষার তারিখ০৭/১২/২০১৮ শুক্রবার সকাল ১০টা হতে ১১টা পর্যন্ত (১ঘন্টা)

২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে নার্সিং ভর্তি আবেদন করার প্রক্রিয়াসমূহ

নার্সিং ভর্তির জন্য প্রার্থীর শিক্ষাগত যোগ্যতা

ক. ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি : যে কোন শিক্ষা বোর্ড হতে ২০১৪,২০১৫ ও ২০১৬ সালে অনুষ্ঠেয় এস.এস.সি বা সমমানের পরীক্ষায় নূন্যতম জিপিএ ২.৫০ এবং ২০১৬,২০১৭ ও ২০১৮ সালে এইচ.এস.সি বা সমমানের পরীক্ষায় নূন্যতম জিপিএ ২.৫০ প্রাপ্ত মহিলা প্রার্থীগণ আবেদন করতে পারবে।

খ. ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন নার্সিং (বিএসসি ইন নাসিং) : বিজ্ঞান বিভাগে জীববিজ্ঞান বিষয়ে পাসসহ যারা এইচ.এস.সি বা সমমানের পরীক্ষায় ২০১৬,২০১৭ ও ২০১৮ সালে পাস করেছেন তারাই কেবলমাত্র আবেদন করতে পারবেন। এসএসসি বা সমমান এবং এইচ.এস.সি বা সমমানের পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ এর যোগফল নূন্যতম ৬.০০ থাকতে হবে। কোন অবস্থাতেই এস.এস.সি বা সমমান এবং এইচ.এস.সি বা সমমানের পরীক্ষায় জিপিএ ২.৫০ এর নিচে গ্রহণ যোগ্য হবে না।

গ. ডিপ্লোমা ইন নাসিং সায়েন্স এন্ড মিডওয়াইফারি : যে কোন শিক্ষাবোর্ড হতে ২০১৪,২০১৫ ও ২০১৬ সালে অনুষ্ঠেয় এস.এস.সি বা সমামনের পরীক্ষায় নূন্যতম জিপিএ ২.৫০ এবং ২০১৬,২০১৭ ও ২০১৮ সালে এইচ.এস.সি বা সমমানের পরীক্ষায় নূন্যতম জিপিএ ২.৫০ থাকতে হবে। দু্টি পরীক্ষায় জিপিএ ৫.৫০ থাকতে হবে্ কোন পরীক্ষাতেই জিপিএ ২.৫০ এর নীচে গ্রহণযোগ্য হবে না।

নার্সিং ভর্তির জন্য প্রার্থীর শর্তাবলীসমূহ

ক. আবেদনকারীকে বাংলাদেশে স্থায়ী নাগরিক হতে হবে।
খ. প্রার্থীকে অবিবাহিত ও সু-স্বাস্থ্যের অধিকারী হতে হবে।
গ. মুক্তিযোদ্ধা কোটা (সন্তান,সন্তানদের সন্তান) : ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি কোর্সের জন্য ২০টি আসন,ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন নার্সিং এর জন্য ২২টি আসন ও ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স এন্ড মিডওয়াইফারি কোর্সের জন্য ৫২টি আসন সংরক্ষিত থাকবে। এ সকল প্রার্থীদেরকে ও অন্যান্যদের ন্যায় ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পন্ন হতে হবে। সংরক্ষিত আসনগুলিকে সম্পূর্ণ মেধার ভিত্তিতে ভর্তি করা হবে। অবশিষ্ট আসনের ৬০% জাতীয় মেধা কোটা ও ৪০% জেলা কোঠার ভিত্তিতে নির্বাচন করা হবে।
ঘ. যুক্তিযুক্ত সংখ্যক মেধা ভিত্তিক অপেক্ষমান তালিকা প্রকাশ করা হবে এবং মেধা ভিত্তিকভাবে নির্বাচিত প্রার্থীগণ ভর্তির পর শুন্য আসনে মেধাক্রমনুসারে ভর্তি করা হবে।
ঙ. আবেদন প্রক্রিয়াকরণ, নিরীক্ষণ এবং ফলাফল চূড়ান্তরকরণ ইত্যাদি কার্যক্রম কম্পিউটারের মাধ্যমে সম্পন্ন করা হবে।
চ. প্রার্থী কোন প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযোগ পাবে তা নির্ভর করবে লিখিত পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর ও প্রার্থীর প্রদেয় পছন্দের ক্রমানুসারে।নির্বাচিত প্রার্থী তার প্রাপ্ত নম্বর অনুযায়ী পছন্দনীয় প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযোগ না পেলে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রাপ্ত নম্বরের প্রার্থী তার প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে অন্য যে কোন প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারবেন।
ছ. ১০০ নম্বরের ১০০টি এম.সি.কিউ প্রশ্নের ১ ঘন্টার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
জ. ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন নার্সিং (বিএসসি ইন নার্সিং) ৭০০ টাকা, ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স এন্ড মিডওয়াইফারি ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি কোর্সে ভর্তি পরীক্ষার ফি বাবদ ৫০০ টাক টেলিটক প্রি-পেইড মোবাইলের মাধ্যমে জমা প্রদান।

২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে নার্সিং ভর্তির আসন সংখ্যা

কোর্সের নামআসন সংখ্যা
ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স এন্ড মিডওয়াইফারি (৩ বছর)২৫৮০ টি
ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি (৩ বছর)৯৭৫ টি
বিএসসি ইন নার্সিং (৪ বছর)১১০০ টি

নার্সিং ভর্তি পরীক্ষার মানবন্টন

ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স এন্ড মিডওয়াইফারি এবং ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি
বিষয়নম্বর
বাংলা২৫
ইংরেজী২৫
সাধারণ বিজ্ঞান৪০
সাধারণ জ্ঞান১০
মোট১০০
বিএসসি ইন নার্সিং
বিষয়নম্বর
বাংলা১৫
ইংরেজী১৫
পদার্থ১৫
রসায়ন১৫
জীব বিজ্ঞান৩০
সাধারণ জ্ঞান১০
মোট১০০

কোর্স চলাকালীন সুযোগ-সুবিধা ও বিধা-নিষেধ

ক) কোর্স চলাকালীন সময়ে অন্য কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়ন করা যাবে না।
খ) সিলেবাস / কারিকুলাম অনুযায়ী তাত্ত্বিক শিক্ষা দিবা ও নৈশকালীন ব্যবহারিক (ক্লিনিক্যাল প্রাকটিস) প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করতে হবে।
গ) কোর্সে অধ্যয়ণকালীন সময়ে নির্ধরিত হারে মাসিক বৃত্তিভাতা প্রদান করা হবে।
ঘ) কোর্সে চলাকালীন সময়ে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয ও বাংলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউন্সিল কর্তৃক প্রণীত বিধি-বিধান ও নিজ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিয়ম শৃঙ্খলা যথাযথভাবে মেনে চলতে হবে।
ঙ) পুরুষ প্রার্থীকে নিজ দ্বায়িত্বে আবাসনের ব্যবস্থা করতে হবে।
চ) কোর্সে যোগদানের জন্য কোন প্রকার টিএ/ডিএ প্রদান করা হবে না।
ছ) কোর্স সমাপ্তির পর সরকারি চাকুরির কোন নিশ্চয়তা প্রদান করা হবে না।
জ) কোর্সে অধ্যায়নকালীন মাইগ্রেশন সর্ম্পূণভাবে বন্ধ থাকবে।
ঝ) অধ্যয়নকালীন সময় ড্রেসকোড অনুযায়ী পোষাক পরিধান করতে হবে।

নার্সিং ভর্তি সংক্রান্ত আরো তথ্য

  • অনলাইনে ফরম পূরণ ও ভর্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য পেতে ভিজিট করুন : http://dgnm.teletalk.com.bd
  • নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তর এর ওয়েবসাইট www.dgnm.gov.bd
  • বাংলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউ্ন্সিল এর ওয়েবসাইট www.bnmc.gov.bd
  •  নার্সিং ভর্তি সার্কুলার সংগ্রহ করতে ভিজিট করুন : http://dgnm.gov.bd/cmsfiles/files/205(2).pdf
বি:দ্র:- উপরোক্ত তথ্য উপাত্তগুলো ইন্টারনেট এবং বিভিন্ন উৎস থেকে যতটা সম্ভব সঠিকভাবে উপস্থাপন ও আপডেট তথ্য প্রদান  করার চেষ্টা করা হয়েছে। তার পরেও নির্ধারিত কতৃপক্ষ কতৃর্ক বিভিন্ন ধরণের পরিবর্তন বা পরিমার্জন ও অনিচ্ছাকৃত ভুল-ত্রুটি হতেই পারে। যদি আপনার অতি জরুরী ও নিখুঁত তথ্যের খুবই প্রয়োজন হয় তাহলে নার্সিং অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট ভিজিট করতে ভুলবেন না। নিমোক্ত তথ্যগুলো গুলো শুধুমাত্র আপনার তথ্যের চাহিদা পূরণ করতে পারবে।
আমাদের সাথে যুক্ত হতে চাইলৈ : ফেসবুক পেইজ | | ফেসবুক গ্রুপ
উপরোক্ত তথ্য সম্পর্কিত কোন মতামত জানাতে চাইলে কমেন্ট করুন এবং শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন