ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য

0
565
আধুনিক সভ্যতা ও প্রযুক্তির উৎকর্ষতার ফলে আমাদের জীবনের প্রতিটি সেক্টরে উন্নয়ন ঘটছে। নিত্যনতুন যুক্ত হচ্ছে আধুনিক সব চমকপদ পদ্ধতি যার মাধ্যমে আমরা কাজের গতি সঞ্চার করছি। বর্তমান যুগ হচ্ছে আধুনিক ব্যবসা সম্প্রসারণের একটি উপযুক্ত সময়। এখন প্রতিটি উন্নয়শীল দেশ চেষ্টা করছে তাদের তরুণ সমাজকে  উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলে ক্রসবর্ডার বাণিজ্য সম্প্রসারণের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক ভিত্তি মজবুদ করার পাশাপাশি বেকার সমস্যার  দূরীকরণে সহযোগিতা করা। যে কোন দেশের ব্যবসায়িক প্লাটফরমকে উন্নয়নের জন্য অতন্ত কার্যকরী ভূমিকা পালন করে সেই দেশের আধুনিক ব্যাংকিং সেক্টর। ব্যাংকিং সেক্টরের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক বাণিজ্য সম্পসারণ ও লেন দেনের একটি সঠিক বিবরণী তুলে ধরা সম্ভব হয়।
ইবিএল মাস্টারকার্ড
ইবিএল এ্যাকুয়া প্রিপেইড মাস্টারকার্ড

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড

বাংলাদেশে তরুণ উদ্যোক্তাদের ব্যবসা সম্প্রসালণের মূল প্রতিবন্ধকতা ছিল বাহিরের দেশ হতে সহজ উপায়ে যে কোন সার্ভিস চার্জ, ডিজিটাল বা ফিজিকাল প্রডাক্ট ক্রয়-বিক্রয়,ইন্টান্যাশনাল ফী প্রদান করার মতো কোন অনলাইন পেমেন্ট সার্ভিস ছিল না। কিন্তু সম্প্রতি বাংলাদেশের একটি বেসরকারী ব্যাংক “ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড” দেশের উদ্যোক্তা ও ফ্রীলেন্সাদের কথা চিন্তা করে “ইবিএল এ্যাকুয়া প্রিপেইড মাস্টারকার্ড” সার্ভিস চালু করেছে। যার মাধ্যমে ইন্টারন্যাশাল পেমেন্ট সার্ভিস উপভোগ করা যাবে, এখন বাংলাদেশে বসেই যে কোন সেবা বা পণ্য অনলাইনে কেনাকাটা, হোটেল বুকিং, ইন্টারনেশ্যানাল ফী, গুগল ও ফেজবুক বিজ্ঞাপনের চার্জসহ বিভিন্ন ধরনের অনলাই পেমেন্ট সহজেই পরিশোধ করা যাবে। দেশের বাহিরে যে কোন অনলাইন পেমেন্টে এই মাস্টারকার্ডটির মাধ্যমে সহজেই পে করা সম্ভব হবে।

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড ব্যবহারের সুবিধাসমূহ

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে উদ্যোক্তাশ্রেণী,ব্যবসায়ী,পর্যটক,আমাদানিকারক প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন ছোট বড় প্রতিষ্ঠান তাদের ইন্টারন্যাশাল পেমেন্ট সার্ভিসের সুযোগ সৃষ্টি হবে। ইবিএল এ্যাকুয়া প্রিপেইড মাস্টারকার্ড ব্যবহারের সুবিধাসমূহ মধ্য রয়েছে : (১) ডুয়েল কারেন্সি ডলার ও টাকা  এর সুবিধা সম্বলিত প্রিপেইড মাস্টারকার্ড। (২) বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে আক্যাউন্ট ম্যানেজ করার সুবিধা। (৩) দেশের মধ্যকার ১৩০০+ আউটলেটে ইবিএল মাস্টাকার্ড কার্ডের মাধ্যমে পেমেন্ট করে আকর্ষণীয় ছাড়ের সুবিধা। (৪) দেশের ভিতরে ও বাহিরের সকল জনপ্রিয় অনলাইন মার্কেটপ্লেস হতে প্রডাক্ট ক্রয়ের সুবিধা। (৫) ব্যাংক অ্যাকাউন্টের ঝামেলা ছাড়াই সকল ব্যাকিং সুবিধা পাওয়া যায়। (৬) দেশের ভিতরে ও বাহিরে যে কোন মাস্টারকার্ড সার্পোটেড এটিএম বুথ হতে ক্যাশ উইথড্র করার সুবিধা। (৭) ইস্টার্ন ব্যাংকের নিজস্ব এটিএম বুথ থেকে ক্যাশ উইথড্র একদম ফ্রী । (৮) মাস্টাকার্ডের মাধ্যমে সরাসরি বিভিন্ন ধরণের ইউটিলিটি বিল পরিশোধের ব্যবস্থা। (৯) মোবাইল রিচার্জ । (১০) মানি ট্রান্সজেকশন অ্যালার্ট সিস্টেম (১১) বৈদশিক মুদ্রা ব্যবহারের সহজ-দ্রুত ও একমাত্র বৈধ পদ্ধতি। (১২)  কার্ডের মেয়াদ ইস্যু করার পর ৩ বছর যা পরে নবায়ন করা যাবে। (১৩)  মাস্টারকার্ডটিতে রয়েছে ই.ভি.এম চিপ ও ও.টি.পি সুরক্ষা ব্যবস্থা যা অনলাইন পেমেন্টের নিরাপত্তা প্রদান করে। (১৪) ফেসবুক,ইউটিউব,গুগল,ইয়াহুর মতো ইন্টারন্যাশাল বিজ্ঞাপন প্রতিষ্ঠানের সার্ভিস নিয়ে সহজে পেমেন্ট করার সুবিব্যবস্থা। (১৫) এছাড়াও অনলাইনে প্রায় সকল ধরণের পেমেন্ট সার্ভিসে এই মাষ্টারকার্ড ব্যবহার করা যাবে।

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড ব্যবহারের নূন্যতম যোগ্যতা

  • জন্মসুত্রে বা অনুমোদনসুত্রে বাংলাদেশে বৈধ নাগরিক।
  • নূন্যতম ১৮ বছর বয়সী যে কোন ব্যক্তি ।

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড আবেদেনের জন্য যা যা প্রয়োজন

  • ব্যাংক থেকে প্রদত্ত একটি আবেদন ফরম সংগ্রহ করতে হবে।
  • জাতীয় পরিচয় পত্র বা স্মার্ট কার্ডের ফটোকপি।
  • অবশ্যই বৈধ পাসপোর্টের এককপি ফটোকপি।
  • পাসপোর্ট সাইজ দুই কপি রঙ্গিন ছবি।

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড আবেদেনের পদ্ধতি

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ডের জন্য উপরে উল্লেখিত প্রয়োজনীয় সকল ডকুমেন্টসহ আপনার নিকঠস্থ ইস্টার্ন ব্যাংকের যে কোন অফিস শাখায় যোগাযোগ করুন। অফিসে কর্তব্যরত ম্যানেজার বা সহযোগী অফিসারকে বলুন আপনি একটি ইবিএল এ্যাকুয়া প্রিপেইড মাষ্টারকার্ড সংগ্রহ করতে চাচ্ছেন। আপনি যদি মাষ্টারকার্ডে ডলার অ্যন্ড্রোসমেন্ট এবং অনলাইন পেমেন্ট সার্ভিস ব্যবহার করতে চান সেটা পরিষ্কারভাবে উল্লেখ করুন। কর্তব্যরত অফিসার আপনার কাছে পাসপোর্টের ফটোকপি চাইতে পারেন অবশ্যই সেটি সঙ্গে নিয়ে যাবেন । যদি অাপনার পাসপোর্ট না থাকে তাহলে কিন্তু মাস্টারকার্ডটি ব্যবহার করে কোন প্রকার ইন্টারন্যাশনাল পেমেন্ট করতে পারবেন না। অতএব যদি ডলার ব্যবহার করে ইন্টারন্যাশনাল পেমেন্ট করাই যদি আপনার মূল উদ্যোশ হয়ে থাকে অবশ্যই প্রথমে পাসপোর্ট সংগ্রহ করুন। আর যদি দেশের অভ্যন্তরে পেমেন্ট কাজের জন্য এই কার্ড ব্যবহার করুন তাহলে পাসপোর্টের প্রয়োজন হবে না।

আপনি সকল বিষয় গুরুত্বসহকারে অফিসারকে প্রশ্ন করুন এবং ওনার বক্তব্য শ্রবণ করুন। কার্ডের কি কি সুবিধা রয়েছে? আপনি কি কি সুবিধা সম্পর্কে অবগত আছেন, এখন পর্যন্ত নতুন বা সম্ভাব্য কি কি সুবিধা কার্ডে যুক্ত হতে পারে সেই বিষয়ে আলোচনা করুন। ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ডের জন্য আপনাকে একটি নির্ধারিত ফরম আবেদন করতে হবে। সেই ফরমটি সঠিকভাবে পূরণ করুন প্রয়োজনে অফিসারের সহযোগীতা নিন। কার্ডের জন্য সকল প্রকার আবেদন পক্রিয়া শেষ হওয়ার পর পরই আপনি ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন। মাষ্টারকার্ডে আপনার নাম ও ছবিসহ প্রিন্ট করিয়ে নিতে চাইলে সম্ভবতো ৫-৭ কার্যদিবস অপেক্ষা করতে হতে পারে। কার্ডটি নেয়ার পর পরই আপনি কার্ডে ডলার লোড করতে পারবেন। কিন্তু ব্যলেন্স চেক ও ডলার ব্যবহারের জন্য আপনাকে কার্ডটি সম্পূর্ণ্যরুপে একটিভ হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হবে। কার্ডটি সম্পূর্ণ্য রুপে একটিভ করার জন্য আপনাকে কার্ডের সাথে প্রদত্ত কাস্টমার কেয়ার হ্লেপলাইনে ফোন করতে হবে। কাষ্টমার কেয়ার হ্লেপলাইনে ফোন করে অফিসারকে আপনার কার্ডটি একটিভ করে দিতে অনুরোধ করুন । আপনি যদি কার্ডটি নেওয়ার সময় ডলার ব্যবহারের জন্য অ্যান্ড্রোসমেন্ট করিয়ে থাকেন  এবং ই-কর্মাস পেমেন্ট অ্যাকটিভ করার জন্য বলে থাকেন তবে কার্ড সম্পূর্ণ্যভাবে ব্যবহার উপয়োগী হতে ৫-৭দিন সময় লাগতে পারে সেই পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। কার্ডটি একটিভ হয়ে গেলে আপনি কার্ডটি ব্যবহারে করতে সক্ষম হবেন।

এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড
ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড ব্যবহার সম্পর্কিত সকল তথ্য

মাস্টারকার্ড ব্যবহারে  নিমোক্ত সকর্তকা অবলম্বন করুন

আপনার ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ডটি সবর্দা গোপন জায়গায় রাখুন । কার্ডের সাথে কোন প্রকার পিনকোড বা পিন সংরক্ষণ করে রাখবেন না। আপনার কার্ডের পিন নম্বরটি মুখস্থ করে নিন । যে কোন সাইটে পেমেন্ট করার পূর্বে সর্তকতা অবলম্বন করুন । প্রয়োজনে যে সাইটে পেমেন্ট করতে ইচ্ছুক সেই সাইটের লিংক ও এস.এস.এল সার্টিফাইড কিনা তা বার বার পর্যবেক্ষণ করুন। মাষ্টাকার্ডের সাথে প্রদত্ত পিন নম্বর,মেয়াদের তারিখ,সি.ভি.ভি কোডটি গোপন রাখুন কখনোই কারো সাথে প্রকাশ করবেন না। প্রতিটি লেনদেনের পূর্বে সময় নিয়ে পর্য়বেক্ষণ করুন তারপর পেমেন্ট করার সিদ্ধান্ত নিন।

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ডের চার্জ সমূহ

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ডের জন্য আবেদন করতে আপনার প্রথম ৫৭৫ টাকা চার্জ দিতে হবে। যা প্রথম ৩ বছরের মাষ্টারকার্ডের বাৎসরিক ফী হিসেবে নির্ধারণ করা থাকবে। প্রতি ৩ বছর পর পর কার্ডটি রিনিউ করতে আবার ৫৭৫ টাকা প্রদান করতে হবে। ইবিএল এটিএম বুথ থেকে টাক উত্তোলনে কোন প্রকার চার্জ দিতে হবে না একদম ফ্রী কিন্তু অনান্য মাস্টারকার্ড সার্পোটেড এটিএম বুথ থেকে ক্যাশ উত্তোলনের জন্য ২৫ টাকা +১৫% ভ্যাট একই হারে প্রদান করতে হবে। তবে এন.পি.এস.বি সার্পোটেড এটিএম বুথ থেকে ক্যাশ উত্তোলনে ১৫ টাকা +১৫% ভ্যাট কাটা হবে। ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ডের রিপ্লেসমেন্ট চার্জ ৫০০ টাকা। মানি ট্রানজেকশন অ্যালার্ট ফী ২০০ টাকা এবং পিন পরিবর্তন করতে চাইলে ৫০০ টাকা প্রদান করতে হবে।

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ড ব্যবহারের সীমাবদ্ধতা

ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ডের মাধ্যমে প্রতিদিন সর্বোচ্চ ১ লক্ষ টাকা রিলোড করা যাবে। ২০ হাজার টাকা সমপরিমাণ বা তার অধিক ডলার অ্যান্ড্রোসমেন্ট করতে চাইলে জমাদানের ক্ষেত্রে ব্যাংক কর্তৃক প্রদত্ত ফরম ফিলাপ করে জমা দিতে হবে। প্রতিদিন পজ মেশিন ব্যবহারে মাধ্যমে সর্বোচ্চ ৬ বারে ৪০ হাজার টাকা বা ১২৫০ ডলার ১০ বার অনলাইন পেমেন্ট করা যাবে। এটিএম বুথের মাধ্যমে প্রতিদিন ৬ বারে ৫০ হাজার টাকা এবং ১২৫০ ডলার ১০ বারে উত্তোলন করা যাবে। প্রতি লেনদেনে সর্বোচ্চ্ ৩০০ ডলার পর্যন্ত একই সাথে ব্যবহার করা যাবে।  যেহেতু ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ডটি ট্রাভেল কোঠায় বরাদ্ধ তাই এই কার্ডের মাধ্যমে সার্কভুক্ত দেশের জন্য সর্বোচ্চ ৫ হাজার ডলার এবং অন্যান্য দেশের জন্য ৭ হাজার ডলার ব্যবহার বা খরচ করা যাবে। আমাদের দেশের মানি লন্ড্যারিং আইন অনুযায়ী দেশের বাহিরে টাকা পাঠানো অবৈধ তাই মাষ্টারকার্ড ব্যবহারে প্রতি লেনদেনে ১০০ ডলার লিমিট দেওয়া থাকে। স্টাডি সংক্রান্ত কোন পেমেন্ট এর জন্য ৩০০ ডলার পর্যন্ত লিমিট বাড়ানো সম্ভব । ইবিএল এ্যাকুয়া মাস্টারকার্ডটি একটি প্রিপেইড কার্ড তাই টাকা বা ডলার ব্যবহারের পূর্বে আপনাকে লোড করতে হবে। আপনি মাষ্টারকার্ডটি ব্যবহার করতে না চাইলে যে কোন মূহুর্তে এই কার্ডটির সার্ভিস বন্ধ করতে পারবেন। কার্ডে লোডকৃত অব্যবহৃত টাকা বা ডলার ক্যাশ করার জন্য আপনাকে ১০০ টাকা বা ক্যাশকৃত টাকার ওপর ১% শতাংশ হারে ফী চার্জ করা হবে।
আমাদের সাথে যুক্ত হতে চাইলৈ : ফেসবুক পেইজ | | ফেসবুক গ্রুপ
উপরোক্ত তথ্য সম্পর্কিত কোন মতামত জানাতে চাইলে কমেন্ট করুন এবং শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন