বিসিএস পরীক্ষা সম্পর্কিত নতুনদের জন্য সাধারণ প্রশ্ন ও উত্তর

0
2551

বাংলাদেশে সিভিল সার্ভিস (বিসিএস) পরীক্ষা হলো সারাদেশে ব্যাপী একযোগে পরিচালিত হওয়া একটি প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার আসর। যেখানে বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে বিসিএস পরীক্ষার সাধারণ,প্রফেশনাল ও উভয় ক্যাডারের মোট  ২৭ টি পদে জনবল বা কর্মী নিয়োগ প্রদান করা হয়। বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য পর্যায়ক্রমে তিনটি ধাপে অংশগ্রহণ করতে হয়। প্রাথমিক স্তরে থাকে যোগ্যতা যাচাই মূলক এমসিকিউ পরীক্ষা দিতে হয়।

এরপর দ্বিতীয় ধাপে লিখিত পরীক্ষা এবং শেষ ধাপে মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।বিসিএস পরীক্ষা অন্যান্য সাধারণ পরীক্ষা চেয়ে ব্যতীক্রম কেননা একজন ব্যক্তির বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণের পূর্বে যে সাধারণ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হয়েছে তা ছিল মূলত একটি মেধার যাচাই ভিত্তিক একাডেমিক মানদন্ড। যার মাধ্যমে শুধুমাত্র একজন ব্যক্তি তার শিক্ষা জীবনের একাডেমিক স্তরগুলো পার করেছেন। জীবনের প্রতিটি পরীক্ষাই খুবই গুরুত্বপূর্ণ্য কিন্তু বিসিএস পরীক্ষা অংশগ্রহণের মাধ্যমে একজন ব্যক্তি তার মেধার ভিত্তিতে  সামাজিক মর্যাদা ও কর্মের সুযোগ তৈরি করতে পারেন।

বিসিএস প্রিলি ও লিখিত পরীক্ষা সম্পর্কিত সাধারণ প্রশ্ন ও উত্তর

সাধারণ প্রতিটি শিক্ষার্থীর প্রথম লক্ষ্যই থাকে বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে চমকপদ একটি ফলাফল লাভ করা তাই বিসিএস পরীক্ষা সম্পর্কিত তথ্যের আগ্রহ সকলের রয়েছে। বিশেষ করে নতুন যারা গ্রাজুয়েশন সম্পূর্ণ্য কর প্রথমবার বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে যাচ্ছেন তাদের মাঝে বিসিএস পরীক্ষা সম্পর্কিত সাধারণ তথ্যে চাহিদা থাকে সবচেয়ে বেশি। তাই এক পোষ্টির মাধ্যমে বিসিএস পরীক্ষা সম্পর্কিত সকল সাধারণ প্রশ্নের তথ্য দেওয়ার চেষ্ঠা করব।

ট্রেজারি চালান ফরম পূরণ করার সঠিক নিয়ম

বিশেষভাবে আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি

বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ ইচ্ছুক শিক্ষার্থী ও আগ্রহী ব্যক্তিদের কাছ থেকে যে  সাধারণ প্রশ্নগুলো পেয়েছি তার আলোকে তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণের মাধ্যমে তথ্য প্রদান করার জন্য চেষ্ঠা করেছি মাত্র। বিসিএস সম্পর্কিত আরো কোন যৌক্তিক প্রশ্ন, বা নিমোক্ত তথ্যগুলোর মধ্যে কোন ভুল বা সংশোধনী থাকলে কমেন্টে জানাতে পারেন। আমরা তা পয়েন্ট আকারে ক্রমান্বয়ে সাজিয়ে প্রশ্ন ও উত্তরসহ পোষ্ট আপডেট করব। প্রশ্ন করার আগে অবশ্যই দয়া করে একবার দেখে নিন আপনার সম্পর্কিত প্রশ্নের উত্তর এখানে দেওয়া আছে কিনা। যদি দেওয়া থাকে তাহলে নতুন কোন প্রশ্ন থাকলে জানাতে পারেন।

বিসিএস পরীক্ষা সম্পর্কিত নতুনদের জন্য সাধারণ প্রশ্ন ও উত্তর

১. বিসি্এস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ জন্য শিক্ষাগত যোগ্যাতা কি প্রয়োজন ?
উত্তর : যে কোন স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় হতে ৪ বছরের সম্মান ডিগ্রি থাকতে হবে।

২. উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশকৃত শিক্ষার্থীরা  কি বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে ?
উত্তর : অবশ্যই অংশগ্রহণ করতে পারবে । কিন্তু ৪ বছর মেয়াদী অর্নাস সমমান যে কোন ডিগ্রী পাশ হতে হবে।

৩. মেডিকেল থেকে পাসকৃত শিক্ষার্থীরা কি সাধারণ বিসিএস এ অংশগ্রহণ করতে পারবে ?
উত্তর : জ্বি মেডিকেল থেকে পাসৃকত শিক্ষার্থীরা সাধারণ বিসিএস এ অংশগ্রহণ করতে পারবে।

৪. বিসিএস পরীক্ষায় আবেদনের জন্য বয়সের কোন বাধাধরা নিয়ম আছে কি ?
উত্তর : জ্বি ! সাধারণত আবেদনকৃত শিক্ষার্থীকে সর্বনিম্ন ২১ বছর থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে মুক্তিযোগদ্ধার সন্তান এবং বিসিএস স্বাহ্য ক্যাডারে জন্য বয়স ৩২ হতে পারে। সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে শুধুমাত্র নৃগোষ্ঠির ক্ষেত্রে বয়স৩২ হওয়া যাবে।

৫. বিসিএস পরীক্ষায় আবেদন করতে সর্বনিম্ন কত সিজিপিএ ও জিপিএ প্রয়োজন হয় ?
উত্তর : সিজিপিএ ৪ এর মধ্যে সর্বনিম্ন ২.২৫ এবং এইচ.এস.সি ও এস.এস.সি তে সর্বনিম্ন ৩ পয়েন্ট লাগবে।

সার্টিফিকেট মার্কশীট এডমিটকার্ড হারিয়ে গেলে বা নষ্ট হলে করণীয়

৬. প্রতিবছর কোন মাসে বিসিএস পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় ?
উত্তর : সাধারণত প্রতিবছর মে বা জুন মাসে বিসিএস পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষার ১ মাস আগে থেকে বাংলাদেশে সিভিল সার্ভিসের ওয়েবসাইটে আবেদনের জন্য বিজ্ঞতি প্রকাশ করা হয়।

৭. সাধারণ বিসিএস পরীক্ষা আর বিশেষ বিসিএস পরীক্ষার মধ্যে পার্থক্য কি ?
উত্তর : বিশেষ বিসিএস পরীক্ষায় যেকোন একটি ক্যাডার নিয়োগ প্রদানের জন্য পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। যেমন শুধুমাত্র ডাক্তার, কলেজ প্রভাষক, কৃষি অফিসার ইত্যাদি ক্যাডারের মধ্যে পৃথক পৃথক পরীক্ষা। আর সাধারণ বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে ফরেন, এডমিন,পুলিশ,কাষ্টমস,কর ও শুল্ক, অডিট এবং একাউন্স এসব ক্যাডারে নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

৮. বিসিএস ক্যাডারে যে ২৭টি পদে কর্মী নিয়োগ দেওয়া হয় সেগুলো কী কী ?
উত্তর :  বিসিএস পরীক্ষায় সাধারণ ক্যাডারে মাধ্যমে ১৫টি ও কারিগরি বা পেশাগতভাবে ১৩টি এই মোট  ২৭টি পদ রয়েছে। সাধারণ ক্যাডার পদের মধ্যে রয়েছে : প্রশাসন,আনসার,নিরীক্ষা ও হিসাব, সমবায়,শুল্ক ও ট্যাক্স, ইকনমিক,পরিবার পরিকল্পনা,খাদ্য,পররাষ্ট্র,তথ,পুলিশ,ডাক,রেলওয়ে পরিবহণ, কর ও বাণিজ্য । প্রফেশনাল ক্যাডারের মধ্যে রয়েছে : সড়ক ও জনপথ,গণপূর্ত,জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল,বন,স্বাস্থ্য,রেলওয়ে প্রকৌশল,পশু সম্পদ,মৎস,পরিসংখ্যান ও গবেষণা, কারিগরী শিক্ষা,কৃষি,খাদ্য,সাধারণ শিক্ষা।

৯. বিসিএস লিখিত পরীক্ষায় কতক্ষণ সময় নির্ধারিত ?
উত্তর : বিসিএস লিখিত পরীক্ষায় বাংলার জন্য ৪ঘন্টা, ইংরেজী ৪ ঘন্টা, বাংলাদেশ বিষয়াবলী ৪ ঘন্টা, আর্ন্তজাতিক বিষয়বলী ৩ ঘন্টা, গণিত ২ঘন্টা মানসিক দক্ষতা ১ ঘন্টা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ের জন্য ৩ ঘন্টা সময় নির্ধারিত।

১০. বিসিএস পরীক্ষায় সাধারণ, প্রফেশনাল ও উভয় ক্যাডারে কয়টি বিষয়ে এবং কত নম্বরে পরীক্ষা দিতে হয় ?
উত্তর : সাধারণ ক্যাডারের জন্য মোট ৯ বিষয়ে পরীক্ষা দিতে হয়। বিয়গুলো হল : সাধারণ বাংলা (১ম ও ২য় পত্র)=২০০নম্বর, সাধারণ ইংরেজী (১ম ও ২য় পত্র)=২০০নম্বর,বাংলাদেশ বিষয়াবলি (১ম ও ২য় পত্র)=২০০নম্বর, আর্ন্তজাতিক বিষয়াবলি=১০০নম্বর, গাণিতিক যুক্তি ও মানসিক দক্ষতা=১০০নম্বর, সাধারণ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি=১০০নম্বর।প্রফেশনাল ক্যাডারের জন্য সাধারণ বাংলা =১০০নম্বর, সাধারণ ইংরেজী =২০০নম্বর,বাংলাদেশ বিষয়াবলি =২০০নম্বর, আর্ন্তজাতিক বিষয়াবলি=১০০নম্বর, গাণিতিক যুক্তি ও মানসিক দক্ষতা=১০০নম্বর এবং কাগজপত্রের জন্য = ২০০ নম্বর।উভয় ক্যাডারে জন্য মোট ৯টি আবশ্যিক বিষয় এবং দুইটি পদ সম্পর্কিত বিষয়ে পরীক্ষা দিতে হয়।

বিসিএস পরীক্ষা সম্পর্কিত নতুনদের জন্য সাধারণ প্রশ্ন ও উত্তর সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য

১১. বিসিএস এ মোটামোটি কত % নম্বর পেলে ভাইভা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা যাবে ?
উত্তর : মোটামোটভাবে ৫০% নম্বর পেলে ভাইভা বোর্ডে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

১২. বিসিএস করার পর উচ্চতর ডিগ্রী নেওয়া যাবে ?
উত্তর : জ্বি ! আপনি বিসিএস এর পর আপনি বিভিন্ন বিষয়ে মার্টাস এবং উচ্চতর ডিগ্রীর জন্য দেশে বা দেশের বাহিরে গিয়ে পিএইচডি ডিগ্রী নিতে পারবেন।

উচ্চশিক্ষার গ্রহণের জন্য বিদেশে যাওয়ার পূর্ব প্রস্তুতি ও করণীয়

১৩. উভয় বিসিএস ক্যাডারে যারা আবেদন করবে তারা মোটামোট কত নম্বর উপর লিখিত পরীক্ষা দিবে?
উত্তর : জেনালেল ক্যাডারের জন্য আপনারকে ৯০০ নম্বর ও প্রফেশনাল বা টেকনিক্যাল ক্যাডারে ৯০০ নম্বর এবং উভয় ক্যাডারে ১১০০ নম্বরে পরীক্ষার দিতে হবে।

১৪. ৯০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষার মোট বিষয় কত দিনে পরীক্ষা দিতে হয় ?
উত্তর : বাংলা পরীক্ষা ১দিন , ইংরেজী পরী্ক্ষা ১ দিন, বাংলাদেশী বিষয়াবলী ১ দিন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ১ দিন এবং আর্ন্তজাতিক বিষয়াবলি ও গণিত পরীক্ষা ১ দিন । যথাসম্ভব এইভাবেই পরীক্ষা হয়ে থাকে।

১৫. বিসিএস পরীক্ষার সিলেবাস কোথা থেকে সংগ্রহ করব ?
উত্তর : বিসিএস পরীক্ষার জন্য আপনাকে সকল বিষয়ের ব্যাসিক ধারণা নিয়ে রাখতে হবে। তবে আপনি সিলেবাসের জন্য পি.এস.সির ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারেন অথবা বিসিএস এর প্রস্তুতি বই গুলোর প্রথম পাতায় সিলেবাস পেয়ে যাবেন।

১৬. বিসিএস লিখিত পরীক্ষায় কত নম্বর পেলে পাশ ?
উত্তর : বিসিএস পরীক্ষায় আপনাকে সকল বিষয় মিলে ৪৫০ নম্বর পেলৈ আপনি পাশ করতে পারবেন।

১৭. বিসিএস পরীক্ষায় এস.এস.সি ও এইচ.এস.সি পরীক্ষার ফলাফলের কোন বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে কিনা?
উত্তর : জ্বি না ! এস.এস.সি বা এইচ.এস.সি পরীক্ষার ফলাফল আপনাকে তেমন কোন সাহায়্য করবে না। আপনাকে বিসিএস মুল পরীক্ষার ওপর গুরুত্ব দিতে হবে।

১৮. বিসিএস পরীক্ষার জন্য দৈনিক মোট  কত ঘন্টা পড়ালেখা করা প্রয়োজন ?
উত্তর : পড়ালেখা সারাদিন করে যদি আপনি বিসিএস ক্যাডার হতে তাহলে সারাদিন করবেন । আর যদি বলেন আমি দৈনিক ১ ঘন্টা করে পড়েই বিসিএস পরীক্ষায়  ভালো করব তাহলে সেটাও করতে পারেন। এটা আসলে ব্যক্তি বিশেষ মতামত তবে ব্যক্তিগত মতামত হলো পড়ালেখা কতক্ষণ করবেন সেটা না গুণে বরঞ্চ আপনি কত ঘন্টা শরীর মন সুস্থ রেখে দৈনিকের পড়ালেখায় মনোযোগ দিয়ে করতে পাবেন সেটাকে গুরুত্ব দেওয়া উচিত।

১৯. বিসিএস লিখিত পরীক্ষার প্রশ্নের উত্তর কি ধারাবাহিকতা বজায় রাখা বাধ্যতামূলক ?
উত্তর : জ্বি না ! বিসিএস পরীক্ষায় এরকম কোন ধারাবাধা নিয়ম নেই।

২০. বিসিএস ক্যাডার এর চাকুরীর ক্ষেত্রে অর্নাসের বিষয় কোন প্রভাব পড়বে ?
উত্তর : জ্বি না । আপনার চাকুরীর ক্ষেত্রে তেমন কোন প্রভাব পড়বে না যদি পরীক্ষায় আপনি ভলো ফলাফল করেন এবং অয়াচিত কোন পরিস্থিতির স্বীকার না হলে।

আমাদের সাথে যুক্ত হতে চাইলৈ : ফেসবুক পেইজ | | ফেসবুক গ্রুপ

উপরোক্ত তথ্য সম্পর্কিত কোন মতামত জানাতে চাইলে কমেন্ট করুন এবং শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন