সিরিয়ায় একযোগে যৌথ সামরিক বাহীনির ক্ষেপণাস্ত্র হামলা

0
214

সিরিয়ায় একযোগে সামরিক অভিযান শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স। সন্দেহজনক রাশায়নিক অস্ত্রের মজুদ লক্ষ্য করে টমাক বুর্জ ক্ষেপণাস্ত্র ছোঁড়া হয়েছে বলে জানিয়েছে ওয়াশিংটন। শুুক্রবার রাতে সিরিয়ায় অভিযানের নির্দেশ দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ট ট্রাম্প। এর মধ্যে প্রায় ১৩টি ক্ষেপণাস্ত্র ধ্বংস করেছে সিরিয়ার সামরিক বাহিনী।এমন হামলা চালানোর জন্য জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে বৈঠকের আহবান জানাবে বলে জানিয়েছে রাশিয়া।

ক্ষেপণাস্ত্র হামলা
সিরিয়ায় একযোগে যৌথ সামরিক বাহীনির ক্ষেপণাস্ত্র হামলা
ট্রাম্প এক সংবাদ সম্মেলনে তার বক্তব্যে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীকে নির্দেশ প্রদান করেছি সিরিয়ার সৌরশাসক বাসাদ-আল-আসাদের রাশায়ানিক অস্ত্র মজুদের স্থাপনা লক্ষ্য করে অভিযান চালানোর জন্য। সিরিয়ার অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স তিন মিত্রদেশের যৌথ-সামরিক বাহিনীর মাধ্যমে। ভূ-মধ্যসাগরে মতায়ন করা  মার্কিন রনতরী থেকে রাতে সিরিয়ার বুকে ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হানা হয়। সিরিয়ার বিদ্রোহী অধ্যুষিত দৌমা এলাকায় রাসায়নিক হামলার পরিপ্রেক্ষিতে ১৪ এপ্রিল, শনিবার ভোরে দেশটির সরকারি ভবনে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স। অন্যদিকে  পেন্টাগণ বলছে সিরিয়ার বিশেষ কয়েকটি গোবেষণাগারে রাসায়নিক অস্ত্র প্রস্তুুত করা হয় সেই সব স্থানকেই লক্ষ্য করেই ক্ষেপণাস্ত্র ছোঁড়া হচ্ছে। এরই মধ্যেই সিরিয়ার দামেস্ক শহরের একটি এবং অন্য আরেকটি শহরে দুইটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে। এই হামলায় বসে নেই সিরিয়াও এখন পর্যন্ত বেশ কয়েকটি যুক্তরাষ্ট্রের ছোঁড়া ক্ষেপণাস্ত্র আকাশেই ভূপাত্তিত্ব বা ধ্বঙস করতে সক্ষম হয়েছে তারা। সিরিয়ায় অভিযান চালানোর আগে রাশিয়াকে কিছুই জানাইনি যুক্তরাষ্ট্র। তাই রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় জানাই এই জবাব যুক্তরাষ্ট্রকে খুবই কড়া ভাবে ফেরত দেওয়া হবে বলে সর্তক করেন।
আমাদের সাথে যুক্ত হতে চাইলৈ : ফেসবুক পেইজ | | ফেসবুক গ্রুপ
উপরোক্ত তথ্য সম্পর্কিত কোন মতামত জানাতে চাইলে কমেন্ট করুন এবং শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন