বাংলাদেশী বিমান দুর্ঘটনায় নিহতদের জানাযা শেষে মৃতদেহগুলো হস্তান্তর সম্পন্ন

0
400

নেপাল ত্রিভূবন বিমানবন্দরে ইউএস বাংলার একটি বেসরকারী বাংলাদেশী বিমান দূর্ঘটনার নিহত ২৬ জনের মধ্যে ২৩ জনের লাশ দেশে অানা হয়েছে এবং এরপর আর্মি স্টেডিয়ামে একটি জানাযা শেষে লাশগুলো পরিবারের স্বজনদের নিকট হস্তানন্তর করা হয়। এর আগে শাহজালাল অার্ন্তজাতিক বিমান্দরে লাশবাহী একটি কার্গো বিমান বিকাল ৪টা ১৫মিনিটে ২৩টি লাশ নিয়ে নেপাল হতে ঢাকার উদ্দ্যেশে অবতরণ করে।এর আগে নেপালে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের কাছে প্রথমে লাশগুলো হস্তান্তর করা হয়, সেইসময় সকাল ৯ ঘটিকায় বিমান দূর্ঘটনায় নিতহদের প্রথম জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর একটি কার্গো বিমানে লাশগুলো নিয়ে আসা হয় ঢাকায়।

বিমান দুর্ঘটনা
বিমান দুর্ঘটনায় নিহতদের জানাযা
বাংলাদেশের পক্ষ হতে লাশগুলো গ্রহণ করেন সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ও অাওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব ওবায়দুল কাদের ও বিমানমন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামাল । এছাড়াও সেখানে উপস্থিত ছিল দুর্ঘটনায় নিহতদের আত্বীয়-স্বজন । পরে  বিকাল ৫ টার দিকে মরদেহগুলো অ্যাম্বুলেন্স যোগে নিয়ে আসা হয় আর্মি স্টেডিয়ামে। মরদেহগুলো আর্মি স্টেডিয়ামে নিয়ে আশার পর একটি শোকের পরিবেশ তৈরি হয়। নিহতদের আত্বীয়-স্বজনসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তিক পর্যায়ের মানুষ ছুটে আসে বিমান দূর্ঘটনায় নিহতদের একবারের জন্য হলেও চোখের দেখা দেখার জন্য ।এ সময় নিহতদের আত্বীয়-স্বজনেরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে, কেউ কেউ ছেলের ছবি নিয়ে বসে আছেন, চোখ বেয়ে পড়ছে অঝোর অশ্রু, কেউ আছেন স্বামী বা নিকট আত্বীয়ের লাশ দেখার অধির অপেক্ষায়, কেউ বা আবার স্মৃতি চারণ করছে নিহত ব্যাক্তিদের সম্পর্কে  । তখন কান্নার পরিবেশের মধ্যে তৈরি হয় এক বিমূর্ত আবেগ সবাই এক নিশ্চুপ পরিবেশের আর্বিভাব ঘটায়।
বিকাল ৫টা ২৫ মিনিটে রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে জানাযা সম্পন্ন হয়। জানাযার নামাজ পরিচালনা করেন সেনাবাহীনির কেন্দ্রীয় মসজিদের ইমাম মাওলানা মাহমুদুল হক। জানাযায় অংশগ্রহণ করেন আওয়ামীলিগের সাধারণ সম্পাদক, ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, বিএনপি নেতা মেজর হাফিজ,সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলতাফ হোসেন, জাপা নেতা অাবু হোসেন বাবলা, সেনাবাহিনী ও বিমানবাহীনির প্রধানগণ, ইউএস বাংলার ব্যবস্থাপক ও নিহতদের আত্বীয়-স্বজনসহ দেশের তৃণমূল পর্যায়ের জনগণ। জানাযা শেষে ২৩ টি মৃতদেহগুলো নিকট আত্বীয়-স্বজনদের কাছে অানুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করা হয়। এরপর মৃতদেহগুলোর পরের যাত্রা শুরু হয় নিজ নিজ গন্তব্যস্থলে।
২৩টি মৃতদেহের মধ্যে রয়েছে- ফয়সাল আহমেদ,বিলকিস আরা, বেগম হুরুন নাহার বিলকিস, আকতারা বেগম, নাজিয়া আফরীন চৌধুরী, ফরুক হোসেন প্রিয়ক, প্রিয়ন্ময়ী তামারা, রকিবুল ইসলাম,হাসান ইমাম, আঁখিমনি,মিনহাজ বিন নাসির, মতিউর রহমান, এসএম মাহমুদুর রহমান, তাহিরা তানভীন শশী, উম্মে সালমা, মো: নুরুজ্জামান, রফিক জামান, সানজিদা হক বিপাশা, অনিরুদ্ধ জামান ।
উল্লেখ্য যে গত ১২ মার্চ স্থানীয় সময় দুপুর ২ টা ১৫মিনিটে  ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি যাত্রীবাহী বিমান নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দরে অবতরণের সময় বিমান ট্রাফিক কন্ট্রোলের ভুল তথ্যে প্রদানের কারণে বিধ্বস্ত হয়। সেময় বিমানটিতে থাকা মোট ৭১ জন আরোহীর মধ্যে ৫১ জন নিহত হয় এবং মাত্র ২০ জনকে জীবিতউদ্ধার করা হয়।  বিমানটিতে ৭১ জন আরোহীর মধ্যে বাংলাদেশী যাত্রী ছিল ৩৬ জন। তাদের মধ্যে বাংলাদেশী যাত্রী নিহত হয় ২৬ জন ও ১০ জন যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করা হয় । ২৬ জন নিহত বাংলাদেশীদের মধ্যে মোট ২৩ জনকে আজ দেশে আনা হল।
আমাদের সাথে যুক্ত হতে চাইলৈ : ফেসবুক পেইজ | | ফেসবুক গ্রুপ
উপরোক্ত তথ্য সম্পর্কিত কোন মতামত জানাতে চাইলে কমেন্ট করুন এবং শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন