বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় টানা ২য় বারের মত রাষ্ট্রপতি হিসেবে নির্বাচিত : মোঃ আব্দুল হামিদ

0
283

বাংলাদেশের ২০তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে মো : আব্দুল হামিদ শপথ নিয়েছিলেন ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল। সংবিধান অনুযায়ী ৫ বছর মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই ৬০ থেকে ৯০ দিনের মধ্যেই রাষ্ট্রপতি নির্বাচন অনুষ্টিত হতে হবে। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে আব্দুল হামিদের জন্য আওয়ামীলের পক্ষ থেকে মনোয়ন পত্র সংগ্রহ করেন জাতীয় সংসদের চিফ হুইফ আশোমো ফিরোজ। সোমবার বিকাল ৪টা ছিল রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে মনোয়ন পত্র জমা দেওয়ার শেষ সময়। এ সময় কেবল আওয়ামীলের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে আব্দুল হামিদের মনোনয়ন পত্র জমা পড়ে।

২১ তম রাষ্ট্রপতি
২১ তম রাষ্ট্রপতি মোঃ আব্দুল হামিদ
দুপুরে আব্দুল হামিদের পক্ষে এই নির্বাচনে রির্টানিং কর্মকর্তা প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে.এম নুরুল হুদার কাছে এ মনোনয়ন পত্র জমা দেন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার পর ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকের জানায়, দেশের জনগণের যে প্রত্যাশা ও চিন্তা-ভাবনা, চোখের ভাষা, মনের ভাষা, সেই দৃষ্টিতেই মোঃ আব্দুল হামিদ এ সময়কার সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য রাষ্ট্রপতি। সেই কারণেই পুণরায় আবারা আওয়ামীলে পক্ষ থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। দেশের মানুষও আস্থার সংঙ্গে রাষ্ট্রপতি হিসেবেই আব্দুল হামিদকেই গ্রহণ করেছে। তিনি জনগণের প্রত্যাশা পূরণ করলেই আমরা খুশি।
এর আগে এই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণায় প্রধান নির্বাচক কমিশনার বলেন, একাধিক প্রার্থী না থাকায় কোন প্রকার ভোট গ্রহণ ছাড়াই পুনঃ নির্বাচিত হবেন রাষ্ট্রপতি মোঃআব্দুল হামিদ।বুধবার মনোয়ন পত্র যাচাই-বাচাই করার পর যদি বৈধ বলে ঘোষিত হয় তাহলে সেইদিনই নতুন রাষ্ট্রপতি হিসেবে পুনঃরায় মোঃঅাব্দুল হামিদকেই আনুষ্ঠানিকভাবে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচতি ঘোষণা করা হবে।আজ ৭ ফেব্রুয়ারী বুধবার দুপুর সাড়ে ১২ টা নাগাদ নির্বাচন কমিশনের ইসি এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এ কে এম নুরুল হুদা  মাধ্যমে বাংলাদেশের ২১ তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় টানা ২য় বারের মত মোঃ আব্দুল হামিদের নাম ঘোষণা করেন।
আমাদের সাথে যুক্ত হতে চাইলৈ : ফেসবুক পেইজ | | ফেসবুক গ্রুপ
উপরোক্ত তথ্য সম্পর্কিত কোন মতামত জানাতে চাইলে কমেন্ট করুন এবং শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন