ওয়ার্ল্ড ইকোনোমি ফোরাম সম্মেলনে ট্রাম্পের ভাষণের সমালোচনা

0
371
আমেরিকা ফাষ্ট নীতির অর্থ আমেরিকা একা নয় শুক্রবার দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনমি ফোরাম সম্মেলনে এমন ব্যাখ্যা শোনালেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ট ট্রাম্প। সম্মেলনের শেষ দিনের দেওয়া এক ভাষণে তিনি বলেন মার্কিনিদের কাছ থেকে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে যারা অন্যায়ভাবে সুবিধা নিচ্ছে তাদেরকে সর্তক করলেন প্রেসিডেন্ট। মুক্ত বাণিজ্যকে সমর্থন করলেও মার্কিন স্বার্থের ক্ষেত্রে আমেরিকার ফাষ্ট নীতিতেই অটল ডোনাল্ট ট্রাম্প।আমেরিকা ফাষ্ট নীতিকে মূল মন্ত্র বানিয়েই গত মার্কিন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে জয়ী হয়েছিলেন ডোনাল্ট ট্রাম্প। এ নীতির কারণেই গত ১ বছরে মার্কিনদের ভিতরে ও আর্ন্তজাতিকভাবেও আলোচনা-সমালোচনাও কম হয়নি তাকে নিয়ে।
ওয়ার্ল্ড ইকোনমি ফোরাম
ওয়ার্ল্ড ইকোনমি ফোরাম সম্মেলনে ট্রাম্পের ভাষণ

সুজারল্যান্ডের দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনোমির ফরামেও ট্রাম্প সাফাই গাইলেন ফাষ্ট নীতির পক্ষেই। ডোনাল্ট ট্রাম্প ভাষণে বলেন, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হিসেবে আমি সবসময় আমেরিকা প্রদত্ত ফাষ্ট নীতিতে বিশ্বাসী। আমেরিকা ফাষ্ট মানে সবার কাছ থেকেই আলাদা হয়ে যাওয়া নয়। অন্যান্য দেশের রাষ্ট্র নেতাদের মত নিজ দেশের স্বার্থে আমেরিকা ফাষ্ট নীতি আমি পছন্দ করি। দাভোসে দেওয়া ভাষণে ট্রাম্প বিশ্ব অর্থনীতে আমেরিকার অবস্থান, সম্ভাবনা ও সাফল্য ও ভবিষৎ অামেরিকার বাণিজ্য অর্থনীতি ও অন্যান্য দেশের সাথে আমেরিকার বাণিজ্য সম্পর্ক কথা বলেন। তার দাবি গত ১ বছরে তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হওয়ার পর আমরেকির প্রবৃদ্ধি এখন ২.৩ যা পূর্বে আমরিকার অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি হার ছিল ১.৫ পূর্বের তুলনায় এখন ০.৮০ বেড়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ট ট্রাম্প তার ভাষণে আরোও বলেন, বর্তমান আমেরিকা সম্ভবনাময় যেকোন প্রকার বিনিয়োগের জন্য সুষ্ঠু বাণিজ্যের প্রসার ও পরিবেশের জন্য উন্মুক্ত। কিন্তু তিনি হুশিয়ারী দিয়ে বলেন বাণ্যিজ্যের নামে যারা আমেরিকা বা মার্কিনিদের কাছ থেকে সুবিধা নিচ্ছে তাদের দিন শেষ হয়ে যাচ্ছে। বাণিজ্যের জন্য আমেরিকা বা যুক্তরাষ্ট্র এখন সবচেয়ে উপযুক্ত দেশ। তবে বাণিজ্য – অবাণিজ্য নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র আর চোখ বন্ধ করে থাকবে না। যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার অভ্যন্তরীণ বাণিজ্যের মত বৈশ্বিক বাণিজ্য নীতির সংস্করণে প্রয়োজন মনে করেন ট্রাম্প। তিনি বলেন এ একটি বিশ্ব বাণিজ্য প্রথা তৈরি করতে চাই যার মাধ্যমে শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয় বরং সকল দেশ বাণিজ্য সুবিধা পাবে।

দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনোমির ফোরামের সম্মেলনে ট্রাম্পের ভাষণে শুরু হয়েছে সমালোচনা। জলবায়ু পরিবর্তন ঠেকানো, মানবাধিকার, এমনকি বাণিজ্যের পথে বাধাসহ বিভিন্ন ইস্যুতে ফলপ্রসূ আলোচনা না হওয়ায় হতাশ অনেকেই। সম্মেলনে অষ্ট্রেলিয়া থেকে আগত প্রতিনিধি ব্রেট সলোমন বলেন, বিশ্ব নেতাদের এই সম্মেলনে জলবায়ু পরিবর্তন ঠেকানো, মানবাধিকার,নতুন নতুন বাণিজ্য নীতি নিয়ে আলোচনার প্রয়োজন ছিল। ট্রাম্পের ভাষণে মনে হলো তিনি তার মতাদর্শ চাপাতে চাইছেন পুরো বিশ্বের উপর। এক্ষেত্রে আমারা মনে হয় না তিনি সফল হবেন। নোবেল জয়ী মার্কিন অর্থনীতিবিদ জোসেফ স্টিপলিৎজ বলেন ট্রাম্পের ভাষণে যুক্তরাষ্ট্রের সঠিক অর্থনীতির চিত্র ফুটে ওঠেনি। বাস্তবতা হলো ওবামার আমলের শেষ বছরের চেয়েও আমেরিকার অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির হার ২০ শতাংশ কম। সুইজারল্যান্ডের দাভোসে ৪দিন চলমান ওয়ার্ল্ড ইকোনোমির ফোরামের সম্মেলন শেষ হয় শুক্রুবার।
আমাদের সাথে যুক্ত হতে চাইলৈ : ফেসবুক পেইজ | | ফেসবুক গ্রুপ
উপরোক্ত তথ্য সম্পর্কিত কোন মতামত জানাতে চাইলে কমেন্ট করুন এবং শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন