ব্যবহৃত স্মার্টফোন ক্রয়-বিক্রয় বা এক্সচেঞ্জের পূর্বে আপনার করণীয়

0
753
বর্তমান আধুনিক বিশ্বে মোবাইল একটি অতিপ্রয়োজনীয় প্রযুক্তি পণ্য। প্রতিদিন এই পণ্যটির চাহিদা দিন দিন বাড়ছে এবং যুক্ত হচ্ছে নানা ধরনের চমকে যাওয়া সব ফিচারসমূহ। স্বপ্ন কেন্দ্রিক বাস্তবতাই আজ আমাদের মাঝে চলে এসেছে, কোন দেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার সর্বোচ্চ ব্যক্তি থেকে শুরু করে প্রান্তিক পর্যায়ের বেশির ভাগ মানুষের কাছেই এখন মোবাইল ফোন চলে এসেছে।  দেশী বিদেশী বিভিন্ন ব্যান্ড ও নির্মাতা প্রতিষ্ঠান চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছে তাদের নিজস্ব ব্যান্ডের তৈরিকৃত হ্যান্ডসেটটির চাহিদার অনূকুলে দাম ও সুবিধা নিশ্চিত করতে । সেজন্য এই হ্যান্ডসেট  উৎপাদন প্রতিষ্ঠানগুলোকে কেন্দ্র করে তৈরি হচ্ছে একটি সম্ভবনাময় সেক্টর । যে সেক্টরে কাজ করছে হাজার হাজার তরুন-তরুণী। একদিকে যেমন বিশ্বব্যাপী কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হচ্ছে তেমনি উন্নত প্রযুক্তি প্রসার বেড়েই চলছে প্রতিনিয়ত।
স্মার্টফোন ক্রয়-বিক্রয়
ব্যবহৃত স্মাটফোন ক্রয় বিক্রয়
একটা সময় ছিল যখন আমরা ভালো একটি হ্যান্ডসেট ক্রয় করার জন্য নিজের শহরের নিকটস্থ পছন্দনুযায়ী  হ্যান্ডসেট ব্যান্ডের শোরুম ভিজিট করে ভালো মোবাইল ক্রয় করার চেষ্ঠা করতাম অথবা বিদেশে অবস্থানরত কোন আত্বীয়-স্বজন থাকলে তাদের মাধ্যমে নতুন একটি মোবাইল বা হ্যান্ডসেট নিয়ে আসার চিন্তা ছিল।  কিন্তু বর্তমান সময়ে দেখা যাচ্ছে এই নিত্যনৈতিক বাজার ব্যবস্থাই অনেকটাই পরিবর্তন হয়ে গেছে। এখন মোবাইল বাজার বা শো-রুমের পাশাপাশি মানুষ এখন বিভিন্ন ধরণের অনলাইন শপ হতেই মোবাইল ক্রয় করতে পারে। তাছাড়াও মানুষ এখন নতুন ফোনের পাশাপাশি পুরাতন ফোন ক্রয়-বিক্রয় বা এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে বিভিন্ন ব্যান্ড ও ভার্সনের  মোবাইল ব্যাবহারের স্বাদ গ্রহণ করতে ইচ্ছুক। কেননা বর্তমান স্মার্টফোনগুলো এতটাই আধুনিক ও প্রযুক্তিনির্ভর হয়ে ওঠেছে যে, কয়েক শত স্মার্টফোন ব্যান্ড একে অপরকে টেক্কা দিয়ে প্রযুক্তি বাজারে টিকে থাকার জন্য নিজস্ব ব্যান্ডের স্মার্টফোনের ফিচারসমূহ আপডেট করছে।

প্রতিনিয়ত স্মার্টফোন কোম্পানিগুলো নিজস্ব ব্যান্ডের স্মার্টফোনগুলো এতটাই আপডেট রাখে  যে, আজ যে স্মার্টফোন ক্রয় করা হয়েছে কাল ওই স্মার্টফোন ডেট ভার্সনে পরিণত হয়। তাই অনেকের পক্ষে প্রতিনিয়ত নতুন ব্যান্ড ও ভার্সনের স্মার্টফোন  ব্যবহার করা সম্ভব হয় না। এরই পরিপ্রেক্ষিতে দেখা অনেক ক্লাসিফাইড এডনেটওয়ার্কের মাধ্যামে নিজের পুরাতন স্মার্টফোন  ক্রয়-বিক্রয় ও এক্সচেঞ্জ করে । কিন্তু পুরাতন স্মার্টফোন ক্রয়-বিক্রয় ও এক্সচেঞ্জের করার পূর্বে আপনার জানা থাকতে হবে কিছু সাধারণ বিষয়। কেননা আপনি যদি কোন পুরাতন স্মার্টফোন ক্রয়-বিক্রয় ও এক্সচেঞ্জের করতে গিয়ে দেখা গেল সেই মোবাইল বা স্মার্টফোনটি ছিল শীর্ষ তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, ছিনতাইকারী অথবা চোরাই তাহলে আপনার অজান্তেই আপনি পড়তে পারেন মহাবিপদে। তাই আজকে আপনাদের কাছে তুলে ধরব পুরাতন মোবাইল  ক্রয়-বিক্রয় বা এক্সচেঞ্জের পূর্বে আপনার যা যা করা উচিত ।

ব্যবহৃত স্মার্টফোন
স্মার্টফোন ক্রয়-বিক্রয় বা এক্সচেঞ্জের

পুরাতন মোবাইল বা স্মার্টফোন ক্রয়-বিক্রয় বা এক্সচেঞ্জের পূর্বে আপনার করণীয় :

  • পুরাতন  মোবাইল বা স্মার্টফোন ক্রয়-বিক্রয় বা এক্সচেঞ্জের পূর্বে মোবাইল বা স্মার্টফোন বক্সের সাথে থাকা আই.এম.আই কোডটির সাথে ক্রয়কৃত স্মার্টফোনটি মিলিয়ে  দেখে নিতে হবে।
  • যদি কোন কারণে মোবাইলের গায়ে বা ব্যাটারির নিচের অংশে আই.এম.আই কোড পাওয়া না যায় । তাহলে সেই মোবাইল হতে *#0# ডায়েল করে, ঐ মোবাইলের  নিজস্ব আই.এম.আই কোডটি বাহির করে মিলিয়ে নিতে হবে। প্রতিটি মোবাইলে নিজস্ব একটি সিকিউরিটি কোড হচ্ছে আই.এম.আই কোড। যার মাধ্যমে যে কোন নিদিষ্ট মোবাইল অপারেটর ও ইউজারকে ট্রাকিং করা যায়।
  • পুরাতন মোবাইল বা স্মার্টফোনটির  ক্রয়কৃত শো-রুম ইনভয়েস বা রশিদ অবশ্যই সঙ্গে থাকতে হবে। এবং নিরাপত্তার জন্য পুরাতন মোবাইল বা স্মার্টফোনটির বিক্রেতা হতে একটি জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি সঙ্গে দেওয়ার জন্য অনুরোধ করতে হবে।
  •  পুরাতন মোবাইল বা স্মার্টফোনটির সঙ্গে যা যা দেওয়া হবে। যেমন : মোবাইল চার্জার, ইয়ারফোন, মোবাইল বক্স, ক্রয়কৃত রশিদ, গ্যারান্টি বা ওয়ারেন্টিকার্ড (যদি থাকে) তা অরজিনাল হবে কি না ? সেই সম্পর্কে আলোচনা করে নিতে হবে।
  • খুবই গুরুত্বপূর্ণ্য অংশ পুরাতন মোবাইল বা স্মার্টফোনটির দাম বা প্রাইজ কত হবে ? সেটা নির্ভর করবে মোবাইল বা স্মার্টফোনটি ক্রয় করিবার সময়কার কনডিশন, ব্যবহার, আনুষাঙ্গিক জিনিস পত্রের যোগান, গ্যারান্টি ও ওয়ারেন্টি কার্ডের মেয়াদ তার ওপর নির্ভর করে। তাই আপনাকে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পূর্বেই  একটি বাজেট করতে হবে। এবং সেই বাজেটের কাছাকাছি দামের মোবাইল বা স্মার্টফোন দেখতে হবে, আসলে তা বাজার মূল্য কত ? এবং মোবাইল সর্ম্পকে যদি কেউ ভালো জানে তার কাছ হতে পরামর্শ নিয়ে ক্রেতার সম্পর্কে আলোচনা করে মোবাইল বা স্মার্টফোনটির দাম নির্ধারণ করা যেতে পারে।
  • অনেক সময় দেখা যায় পুরাতন মোবাইল বা স্মার্টফোনটি ক্রয়-বিক্রয় বা  এক্সচেঞ্জের ক্ষেত্রে অনেক ধরনের প্রতারণার শিকার হতে হয়। তার মধ্যে সবচেয়ে কাংখিত ঘটনার একটি হচ্ছে অরজিনাল ফোন বিক্রয়ের কথা বলে কপি ফোন বা  অর্ধনষ্ট কিংবা সম্পূর্ণ্য নষ্ট ফোন দেওয়া হয়। এর জন্য আপনাকে সর্তকার সাথে বিষয়টি হ্যান্ডেল করতে হবে। প্রথমে আপনাকে নির্দিষ্ট যে ফোনটি ক্রয় করতে ইচ্ছুক সেই ফোনটির অরজিনাল কনফিগার অনলাইন হতে দেখে নিতে হবে তারপর সেই মোবাইলের সেটিং অপশন হতে কনফিগার অপশন হতে মিলিয়ে নিতে হবে যে সব ফিচারসমূহ পর্যাপ্ত পরিমাণ আছে কি না।এবং কপি ফোন চেনার জন্য বিশেষ কিছু টিপস-টিক্স সাইট রয়েছে সেগুলো ভিজিট করার মাধ্যমে আপনাকে তা সর্ম্পকে বেসিক ধারণা অর্জন করতে হবে।
  • আপনি যদি অরজিনাল মোবাইল বা স্মার্টফোন ক্রয়ের ক্ষেত্রে পারদর্শি না হন তাহলে চিন্তার কোন কারণ নেই । পুরাতন মোবাইল ফোন ক্রয়ের পূর্বে আপনার পরিচিত কাউকে দ্বারা প্রথমে যাচাই-বাচাই করে নিন। অথবা  ALL STORE BD নামক একটি ফেসবুক গ্রুপ রয়েছে তার মাধ্যমে আপনি যে কোন প্রকার নতুন/পুরাতন  মোবাইল বা স্মার্টফোন, ক্যামেরা,লেপটপ ক্রয়-বিক্রয় বা এক্সচেঞ্জ সুবিধা পাবেন। তারা আপনাকে অরজিনাল প্রডাক্ট ক্রয়ের ক্ষেত্রে সকল ধরণের সুবিধা প্রদান করবে।

বি:দ্র:- এই পোষ্টির মধ্যকার কোন কিছু অনিচ্ছাকৃত ভুল থাকলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ থাকবে। এবং পোষ্টি সর্ম্পকিত আপনার যদি কোন মতামত, পরামর্শ থাকে তা কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে পারেন। পোষ্টি পড়ার পর যদি আপনার মনে হয় অপরের উপকার হতে পারে, তাহলে দেরি না করে শেয়ার করুন।

আমাদের সাথে যুক্ত হতে চাইলৈ : ফেসবুক পেইজ | | ফেসবুক গ্রুপ
উপরোক্ত তথ্য সম্পর্কিত কোন মতামত জানাতে চাইলে কমেন্ট করুন এবং শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দিন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার কমেন্ট লিখুন
আপনার নাম লিখুন